মান্না দে : Tag

ভারত আমার ভারতবর্য স্বদেশ আমার স্বপ্ন গো

ভারত আমার ভারতবর্য .             স্বদেশ আমার স্বপ্ন গো তোমাতে আমরা লভিয়া জনম .             ধন্য হয়েছি ধন্য গো || কিরীট ধারিনী তুষার শৃঙ্গে .             সবুজে সাজানো তোমার দেশ তোমার উপমা তুমিই তো মা .             তোমার রূপের নাহিতো শেষ সঘন গহন তমসা সহসা .            ...

সইরে চোখ দুটো তোর চৌকাঠে রাখ চৌকিদারীতে

সইরে চোখ দুটো তোর চৌকাঠে রাখ চৌকিদারীতে বন্ধ করে রাখনা কপাট সময় থাকিতে .              নয়তো পড়বি ফাঁকিতে || .             সোনার চেয়ে দামী রতন .             মন যে তারে বলে .             অরূপ রতন নিতে যে চোর .             আসে নানান্ ছলে .             ওতোর, মনের পান্না...
তোমার দেহের ভঙ্গিমাটি যেন বাঁকা সাপ

তোমার দেহের ভঙ্গিমাটি যেন বাঁকা সাপ

তোমার দেহের ভঙ্গিমাটি যেন বাঁকা সাপ পায়ে পায়ে ছড়িয়ে রাখো যৌবনেরই ছাপ আমি বেদের মত সম্মোহিত আশায় হৃদয় আলোকিত তোমায় ধরার ইচ্ছেটুকু ফুটছে ধাপে ধাপ পায়ে পায়ে ছড়িয়ে রাখো যৌবনেরই ছাপ তোমার সন্ধানী চোখ ভরা যে সন্দেহে জানোনা কি আগুন তোমার সর্বনাশী দেহে কাছে গেলেই তুমি হও...
সেইতো আবার কাছে এলে

সেইতো আবার কাছে এলে

সেইতো আবার কাছে এলে এতদিন দূরে থেকে বলোনা কি সুখ তুমি পেলে এ কেমন ভালোবাসা কে জানে কি ভেবে গো ব্যাথা দিলে এ প্রাণে নিজ হাতে মণি দ্বীপ নিভায়ে আবার নিজেই দিলে জ্বেলে তুমি তো আমায় ভালো চেনো তুমি ছাড়া কোন গান ভাবতেও পারিনা তা জেন তবু যদি ভাব সবই ছলনা সেই কথা মুখে কেন বলনা...
আমি যে জলসা ঘরে

আমি যে জলসা ঘরে

আমি যে জলসা ঘরে বেলোয়ারী ঝাড় নিশি ফুরালে কেহ চায়না আমায় জানি গো আর আমি যে আতর ওগো আতরদানে ভরা আমারি কাজ হল যে গন্ধে খুশী করা কে তারে রাখে মনে ফুরালে হায় গন্ধ যে তার হায় গো কী যে আগুন জ্বলে বুকের মাঝে বুঝেও তবু বলতে পারিনা যে আলেয়ার পিছে আমি মিছেই ছুটে যাই বারে বার...
তুমি একজনই শুধু বন্ধু আমার

তুমি একজনই শুধু বন্ধু আমার

তুমি একজনই শুধু বন্ধু আমার শত্রু ও তুমি একজন তাই তোমাকেই ভালে লাগে তোমাকেই ভালে লাগে তুমি আমার পুর্নিমা রাত তুমি চন্দ্রগ্রহন তাই তোমাকেই ভালে লাগে তোমাকেই ভালে লাগে ওই দুটি হাত যেমন আমায় টেনে নিয়ে যায় মরণে তেমনি আবার ও-হাত ধরেই ফিরে আসি আমি জীবনে যে নয়ন জ্বলে দারুণ...
রঙ্গিনী কত মন মন দিতে চায়

রঙ্গিনী কত মন মন দিতে চায়

রঙ্গিনী কত মন মন দিতে চায় কি করে বোঝাই কিছু চাইনা চাইনা চাইনা সন্দেহে ভরা হোক তোমার দু’চোখ আর কারো চোখে আমি চাইনা চাইনা চাইনা হাতে থাক বেমানান কাঁকনের ধার ও হাতেই দেখি তবু ভাগ্য আমার কাব্যের ভুল থাক তোমার গানের আর কারো গান আমি গাইনা ঝলমল করে ওঠে কত চাঁদমুখ...
ওগো বরষা তুমি ঝড়ো না গো অমন জোরে

ওগো বরষা তুমি ঝড়ো না গো অমন জোরে

ওগো বরষা তুমি ঝড়ো না গো অমন জোরে কাছে সে আসবে তবে কেমন করে রিমঝিম রিমঝিম রিমঝিম এলে না হয় ঝোরো তখন অঝর ধারে যাতে সে যেতে চেয়েও যেতে নাহি পারে বিমঝিম ঝিম ঝিম ঝিম মেঘ তুমি চাঁদকে ঢেক যদিওঠে চন্দ্রমল্লিকা যেন না ফোটে আমারি চাঁদ আমার থাকুক কেউ যেন না দেখে তারে রিমঝিম...
তোমার ঐ হাসিতে কী দারুন জ্বালা

তোমার ঐ হাসিতে কী দারুন জ্বালা

তোমার ঐ হাসিতে কী দারুন জ্বালা যে জ্বলে সেই জানে তুমি শুধু জাননা ও চোখের চাউনিতে মরণের ইশারা যেই দেখে সেই মরে তুমি শুধু মানোনা এ জ্বালা কভু আর কেউ যেন পায়না আমি ছাড়া ঐ চোখে কেউ যেন চায়না মরতে যে চাই আমি একা ঐ মরণে আর যেন কাউকে সই ও মরণে মের না প্রণয়ের এ খেলায় হারি...
তুমি নয় নাই কাছে আসলে

তুমি নয় নাই কাছে আসলে

তুমি নয় নাই কাছে আসলে আমায় নাই বা ভালো বাসলে তাই বলে আমি কি গো ভালবাসবো না আমি কেন কাছে আসবো না মেঘে নয় আকাশটা ঢাকলো চাঁদ নয় আড়ালে থাকলো নদী কেন ভরবে না জোয়ারে সেই স্রোতে আমি কেন ভাসবো না আঁখি নয় স্বপ্নকে ভুললো অশ্রু ই শুধু ভরে তুলল মন কেন দেখবে না স্বপ্ন সেই সুখে আমি...
সহেলী গো কী নামে তোমায় বলো ডাকি

সহেলী গো কী নামে তোমায় বলো ডাকি

সহেলী গো কী নামে তোমায় বলো ডাকি ফাগুনী তুমি না বৈশাখী বলোনা আমায় তুমি শুধু একবার মহুয়া না মৌমিতা কী নাম তোমার তোমায় দেখে যে মনে হয় এত সুন্দর কেউ নয় বুঝিগো প্রথম প্রেম উঁকি দিল জীবনে আমার শ্রীমতি না শর্বরী কী নাম যে রাখি গো তোমার এই কথাটাই গেছি বুঝে তোমায় পেলেই আমি...
সবাই তো সুখী হতে চায়

সবাই তো সুখী হতে চায়

সবাই তো সুখী হতে চায় তবু কেউ সুখী হয় কেউ হয়না জানিনা বলে যা লোকে সত্যি কিনা কপালে সবার নাকি সুখ সয়না আশায় আশায় তবু এই আমি থাকি যাদি আসে কোন দিন সেই সুখ পাখি এই চেয়ে থাকা আর প্রাণে সয়না ভালোবেসে সুখী হতে বল কেনা চায় রাধা সুখী হয়েছিল এই শ্যামরায় আমিও রাধার মত ভালোবেসে...
যদি প্রশ্ন করি সব চেয়ে মিষ্টি কী

যদি প্রশ্ন করি সব চেয়ে মিষ্টি কী

যদি প্রশ্ন করি সব চেয়ে মিষ্টি কী হয়তো বলবে মধু না গো না আমি বলবো তুমি আমার বাসর ঘরের বধু যদি প্রশ্ন করি সব চেয়ে গভীর বলো কী বলবে ভালোবাসা না গো না আমি বলবো তুমি তোমার চোখের নীরব ভাষা যদি প্রশ্ন করি সব চেয়ে আনন্দ দেয় কী হয়তো বলবে সুখ না গো না আমি বলবো তুমি তোমার লজ্জা...

তোমার নিশ্বাসে বিষ ছিলো আমি বিশ্বাস করিনি

তোমার নিশ্বাসে বিষ ছিলো আমি বিশ্বাস করিনি ওরা বলেছিলো বহুবার কারো কথা কানে তুলিনি রূপ এত সুন্দর যার ভাবিনি এমন কালো হবে অন্তর তার তোমারি তো মালা পরেছি আর কারো মালা পরিনি বাইরে তে এত সোনা এত খাদ ভেতরে যাচাই না হলে আমি বুঝতাম কি করে গান এত সুমধুর যার ভাবিনি মুখের কথা এত...

পৌষের কাছাকছি রোদ মাখা সেই দিন

পৌষের কাছাকছি রোদ মাখা সেই দিন ফিরে আর আসবে কি কখনো খুশী আর লজ্জার মাঝামাঝি সেই হাসি তুমি আর হাসবে কি কখনো অনুযোগ কার নাম না জেনে অধরেতে কোন সাড়া না এনে দেখা আর না দেখার কাছাকছি কোন রঙ চোখে আর ভাসবে কি কখনো কাব্য কি কথা সে ভাববো কি বিলাসে মায়া জাল খুলবো কি তখনো দু...

শুধু একদিন ভালোবাসা (চাইনা বাঁচতে আমি প্রেমহীন হাজার বছর)

শুধু একদিন ভালোবাসা মৃত্যু যে তারপর তাও যদি পাই আমি তাই চাই চাইনা বাঁচতে আমি প্রেমহীন হাজার বছর যদি ও চোখে রশ্মি জ্বালো শুধু একবার (শুধু একবার) আমি তাতেই পোড়াতে রাজি যা কিছু আমার আমি চাইনা দেখতে ওই প্রাণহীন চোখের পাথর ভাগ্যের দরবারে দু’হাত পেতে আমি চাইনা পুণ্য...

সোনালী রং মেখে পাখীরা যায় নীড়ে

সোনালী রং মেখে পাখীরা যায় নীড়ে তাই দেখে বলে মন এসো তুমি ফিরে তোমার আসার খবর নিয়ে সন্ধ্যাতারা জাগে বাতাসেরি দিলরুবাতে খুশীর সুর লাগে ঘুমিয়ে থাকা স্মৃতি জাগে বুকে ধীরে ধীরে দিনের শেষে ক্লান্ত হয়ে যায় ঝরে ফুলগুলো কখন আমায় যায় ছুঁয়ে যায় সেদিনেরি ভুলগুলো মেঘের ফাঁকে...

যদি হিমালয় আল্পসের সমস্ত জমাট বরফ (তবুও তুমি আমার)

যদি হিমালয় আল্পসের সমস্ত জমাট বরফ একদিন গলেও যায় তবুও তুমি আমার যদি নায়েগ্রা জলপ্রপাত একদিন সাহারার কাছে চলেও যায় তবুও তুমি আমার যদি প্রশান্ত মহাসাগরে এক ফোটা জল আর নাও থাকে যদি গঙ্গা ভোলগা হোয়াংহো নিজেদের শুকিয়েও রাখে যদি ভিসুভিয়াস ফুজিয়ামা একদিন জ্বলতে জ্বলতে জ্বলেও...

মেনেছি গো হার মেনেছি

মেনেছি গো হার মেনেছি তব পরাজয় মোর পরাজয় বারেবারে তাই জেনেছি ফাল্গুনে ধরা দিলো যে মলয় কুসুমে গন্ধে বাজে বাজে তারি জয় দুরে গিয়ে যত কাঁদানু তোমায় বেদনা কুড়ায়ে এনেছি অভিমান আজ ভুলেছি ক্ষমা করো যদি থেকোনা দাঁড়ায়ে রুদ্ধ দুয়ার খুলেছি এনেছো ভরিয়া তব তনুমন কোন অমরার আনন্দ ঘন...

না না যেওনা ও শেষ পাতাগো

না না যেওনা ও শেষ পাতাগো শাখায় তুমি থাকো ছিলে তুমি ছিলাম আমি চিহ্নটি তার রাখো উত্তর বায় করুক শাসন যাক ঘুচে যাক সবুজ আসন শেষ বেলাকার অশেষ নিয়ে স্মৃতির ছবি আঁকো ওই পাতাটায় অমর হবে তোমার আমার কথা পাশাপাশি থাকবে তোলা আনন্দ আর ব্যাথা তোমার আমার কথা ওই পাতাটায় অমর হবে আনন্দ...
Page 1 of 41234