হেমন্ত মুখোপাধ্যায় : Tag

তোমার ভূবনে মাগো এত পাপ

তোমার ভূবনে মাগো এত পাপ, একি অভিশাপ, নাই প্রতিকার? মিথ্যারই জয় আজ, সত্যের নাই তাই অধিকার || কোথায় অযোধ্যা কোথা সেই রাম কোথায় হারালো গুণধাম, একি হলো একি হলো, পশু আজ মানুষেরই নাম | সাবিত্রী সীতার দেশে দাও দেখা তুমি এসে শেষ করে দাও এই অনাচার || তোমার কঠিন হাতে বজ্র কি...

তুমি এলে অনেক দিনের পরে যেন বৃষ্টি এলো

তুমি এলে অনেক দিনের পরে যেন বৃষ্টি এলো তুমি এলে অনেক কথা এলোমেলো মনে হলো মনে আছে অনেক আগে প্রশ্ন করেছিলে তুমি আপনি এসে নিজে তবু তারই জবাব দিলে এলো রাতের শেষে চুপিসারে যেন দিনের আলো দিন যে আমার আজকে হলো দিন একটু বসো কাছে আমার অনেক কথা আছে তোমার সময় থেকে কিছু সময় আমায়...

কেন দূরে থাক শুধু আড়াল রাখ

কেন দূরে থাক, শুধু আড়াল রাখ কে তুমি, কে তুমি আমায় ডাক ।। মনে হয় তবু বারে বারে এই বুঝি এলে মোর দ্বারে সে মধুর স্বপ্ন ভেব নাক কেন দূরে থাক, শুধু আড়াল রাখ কে তুমি, কে তুমি আমায় ডাক কেন দূরে থাক ভাবে মাধবী সুরভী তার বিলায়ে যাবে মধুরের সুরে সুরে মিলায়ে তোমারি ধ্যায়ানে...

গাঁয়ের বধু

কোনো এক গাঁয়ের বধুর কথা তোমায় শোনাই শোনো রূপকথা নয় সে নয়। জীবনের মধুমাসের কুসুম ছিঁড়ে গাঁথা মালা শিশির ভেজা কাহিনী শোনাই শোনো। একটুখানি শ্যামল ঘেরা কুটিরে তার স্বপ্ন শত শত দেখা দিত ধানের শিষের ইশারাতে দিবা শেষে কিষাণ যখন আসতো ফিরে ঘি মউ-মউ আম কাঁঠালের পিঁড়িটিতে বসতো...

এই মেঘলা দিনে একলা

এই মেঘলা দিনে একলা ঘরে থাকেনাতো মন কাছে যাবো তবে পাবো ওগো তোমার নিমন্ত্রণ যুঁথি বলে ওই হাওয়া করে শুধু আসা যাওয়া হায় হায়রে দিন যায়রে ভরে আঁধারে ভুবন কাছে যাবো তবে পাবো ওগো তোমার নিমন্ত্রণ শুধু ঝরে ঝর ঝর আজ বারি সারাদিন আজ যেন মেঘে মেঘে হলো মন যে উদাসীন আজ আমি ক্ষণে...

আমার জীবনের এত খুশি এত হাসি

আমার জীবনের এত খুশি এত হাসি আজ কোথায় গেল ফুলের বুকে অলির হাসি আজ কোথায় গেল হায় স্বপ্নভরা সেই গান আজ কেন হল অবসান সেই দুটি কথা ভালোবাসি কোথায় গেল আজ কোথায় গেল এই না পাওয়ার ব্যথা ভরা তিথিতে মন আমার ভরা আছে স্মৃতিতে হায় বছর ভরা সেই ফুল হলো কাঁটার আঘাতে যেন ভুল সেই মিলন...

আজ দুজনার দুটি পথ

আজ দুজনার দুটি পথ ওগো দুটি দিকে গেছে বেঁকে তোমার ও পথ আলোয় ভরানো জানি আমার এ পথ আঁধারে আছে যে ঢেকে সেই শপথের মালা খুলে আমারে গেছো যে ভুলে তোমারেই তবু দেখি বারে বারে আজ শুধু দূরে থেকে আমার এ পথ আঁধারে আছে যে ঢেকে আমার এ কূল ছাড়ি তব বিস্মরণের খেয়া ভরা পালে অকূলে দিয়েছি...

তুমি যে আমার ওগো তুমি যে আমার

তুমি যে আমার ওগো তুমি যে আমার কানে কানে শুধু একবার বলো তুমি যে আমার।। আমার পরানে আসি তুমি যে বাজালে বাঁশি সেই তো আমার সাধনা চাইনা তো কিছু আর।। তুমি যে আমার দিশা অকূল অন্ধকারে দাওগো আমারে ভরে নীরব অহংকারে জীবন মরুর মাঝে এসো গো বধূর সাজে সেই তো আমারই জীবনে তোমারই...

আমার আকাশ হয়না তো নীল

আমার আকাশ হয়না তো নীল।। মেঘে মেঘে রয় ছেয়ে! বকুলের মুকুলে নেই কেন গুনগুন, মাধবীর স্বপ্নে আসে না তো ফাল্গুন! কিসের আশায় তবু জেগে রই।। বেদনারই গান গেয়ে। হাসি ভুলে আর কত কাঁদি বালুচরে মিছে ঘর বাঁধি।। অবহেলা পেয়ে আমি আখি জলে সিক্ত অসহায় এই আমি কত যেন রিক্ত।। ঝড়ের আঘাতে হাল...

তোমাদের আসরে আজ

তোমাদের আসরে আজ এই তো প্রথম গাইতে আসা বিনিময় চাই তোমাদের প্রশংসা আর ভালবাসা একদিন তানপুরাটার যে তার গুলো নীরব ছিল কে যেন আজ তার গুলো কে নতুন সুরে জাগিয়ে দিল প্রাণে যে সুর লাগিয়ে দিল, মনে যে সুর লাগিয়ে দিল গানই আমার জীবন ওগো, গানই আমার ভালবাসা তোমাদের আসরে আজ এই তো...

এই রাত তোমার আমার

এই রাত তোমার আমার ওই চাঁদ তোমার আমার, শুধু দুজনের | এই রাত শুধু যে গানের এই ক্ষণও এ দুটি প্রাণের কুহু কুজনের || তুমি আছো আমি আছি তাই, অনুভবে তোমারে যে পাই, শুধু দুজনের | এই রাত তোমার আমার || (ছায়াছবিঃ দীপ জ্বেলে যাই, সুর ও শিল্পীঃ হেমন্ত...

এই পথ যদি না শেষ হয়

এ পথ যদি না শেষ হয় তবে কেমন হোতো তুমি বলোতো যদি পৃথিবীটা স্বপ্নের দেশ হয় তবে কেমন হোতো তুমি বলোতো || কোন রাখালের এই ঘর ছাড়া বাঁশীতে, সবুজের ওই দোল দোল হাসিতে মন আমার মিশে গেলে বেশ হয় যদি পৃথিবীটা স্বপ্নের দেশ হয় || নীল আকাশের ওই দূর সীমা ছাড়িয়ে, এই গান যেন যায়...

পথের ক্লান্তি ভুলে স্নেহ ভরা কোলে তব

পথের ক্লান্তি ভুলে স্নেহ ভরা কোলে তব মাগো, বলো কবে শিতল হবো | কত দূর আর কত দূর বল মা? আঁধারের ভ্রুকুটিতে ভয় নাই, মাগো তোমার চরণে জানি পাবো ঠাঁই, যদি এ পথ চলিতে কাঁটা বেঁধে পায় হাসিমুখে সে বেদনা সবো || চিরদিনই মাগো তব করুণায় ঘর ছাড়া প্রেম দিশা খুঁজে পায় ঐ আকাশে যদি...

ও নদীরে

ও নদীরে, একটি কথা শুধাই শুধু তোমারে | বলো কোথায় তোমার দেশ তোমার নেই কি চলার শেষ! ও নদীরে… তোমার কোনো বাঁধন নাই তুমি ঘর ছাড়া কি তাই, এই আছো ভাটায় আবার এই তো দেখি জোয়ারে || এ কূল ভেঙে ও কূল তুমি গড়ো যার একূল ওকূল দুকূল গেল তার লাগি কি করো? আমায় ভাবছো মিছেই পর,...

বসে আছি পথ চেয়ে

বসে আছি পথ চেয়ে ফাগুনেরও গান গেয়ে যত ভাবি ভুলে যাবো মন মানে না।। বেদনার শতদলে স্মৃতিরও সুরভি জ্বলে নিশীথেরও মন বিনা সুর জানে না।। আজ তুমি নেই সাথে ভুলে থাকা ছলনাতে মনে মনে ভাবি শুধু তোমারি কথা পাওয়া না পাওয়ার মাঝে অচেনারও সুর বাজে সুরভিত বিরহের মর্ম ব্যথা। তুমি ওগো...

আমি দূর হতে তোমারে দেখেছি

আমি দূর হতে তোমারে দেখেছি আর মুগ্ধ হয়ে চোখে চেয়ে থেকেছি। বাজে কিনিকিনি রিনিঝিনি তোমারে যে চিনি চিনি মনে মনে কত ছবি এঁকেছি।। ছিলো ভাবে ভরা দুটি আঁখি চঞ্চল তুমি বাতাসে উড়ালে ভীরু অঞ্চল। ওই রূপের মাধবী মোর সংশয়ে রেখেছি।। (যেন) কস্তুরী মৃগ তুমি আপন গন্ধ ঢেলে এ হৃদয় ছুঁয়ে...

ও আকাশ প্রদীপ জ্বেলো না

ও আকাশ প্রদীপ জ্বেলো না ও বাতাস আঁখি মেলো না আমার প্রিয়া লজ্জা পেতে পারে আহা কাছে এসেও ফিরে যেতে পারে।। তার সময় হলো আমায় মালা দেবার সে যে প্রাণের সুরে গান শোনাবে এবার সেই সুরেতে ঝর্ণা তুমি চরণ ফেলো না।। ও পলাশ ফিরে চেও না ও কোকিল তুমি গেও না লাজুক লতা হয়ত গো লাজ পাবে...